থামল চ্যালেঞ্জার্সের স্বপ্নযাত্রা

16 Feb 2022
থামল চ্যালেঞ্জার্সের স্বপ্নযাত্রা

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ানসের কাছে হেরে শেষ হল চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের স্বপ্নযাত্রা। বঙ্গবন্ধু বিপিএল-এ অলিখিত সেমিফাইনালে পরিণত হওয়া কোয়ালিফায়ার্সে ৭ উইকেটের জায়ে ফাইনালে পৌঁছাল কুমিল্লা।

প্রথমে ব্যাট করতে নামা চট্টগ্রাম নির্ধারিত ২০ ওভারের ৫ বল বাকি থাকতে ১৪৮ রানে অলআউট হয়। সর্বোচ্চ ৪৪ রান করেন মেহেদী হাসান মিরাজ, আকবর আলী খেলেন ৩৩ রানের ইনিংস। জবাবে সুনীল নারাইনের ১৬ বলে ৫৭ রানের কল্যাণে ৪৩ বল হাতে রেখে জয় নিশ্চিত করে কুমিল্লা। শুক্রবার ফাইনালে ফরচুন বরিশালের বিপক্ষে শিরোপা লড়াইয়ে নামবে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ানস।

টস জিতে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুটা মন্দ ছিলনা চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের। ২ বাউন্ডারি ও ১ ছক্কায় ৯ বলে ১৬ রান করে দলীয় ৩১ রানে আউট হন উইল জ্যাকস। ৩৯ রানের মাথায় আউট হন আগের ম্যাচের নায়ক চাদউইক ওয়ালটন। এরপর জাকির হোসেন ও শামীম হোসেনের উচ্চভিলাষি শট খেলতে যাওয়ার মাশুল হিসেবে ৪৩ রানে ৪ উইকেট হারায় চ্যালেঞ্জার্স। ৫০ রানে ফিরে যান অধিনায়ক আফিফ হোসেনও।

whatsapp-image-2022-02-16-at-8.13.50-pm-(1)

এরপর মেহেদী হাসান মিরাজ ও আকবর আলী ইনিংস মেরামতে মনোযোগ দেন। তাদের ৪০ বলে ৬১ রানের পার্টনারশিপ ভাঙ্গে আকবর আলীর বিদায়ে। ২০ বলে ২ বাউন্ডারি ও ২ ছক্কায় ৩৩ রান করেন এ উইকেট কিপার। আকবর আলীর পর দ্রুতই আউট হন বেনি হাওয়েল। ৩ বাউন্ডারি ও ২ ছক্কায় ৩৮ বলে ৪৪ রানের ইনিংস খেলা মেহেদী হাসান মিরাজ ফিরে যান ১৯তম ওভারে। শেষদিকে মৃত্যুঞ্জয় চৌধুরীর ২ ছক্কায় ৯ বলে ১৫ রানের কল্যাণে অলআউট হওয়ার আগে ১৪৮ রান করে চ্যালেঞ্জার্স।

কুমিল্লার শহিদুল ইসলাম ও মুঈন আলী ৩টি করে উইকেট নেন। জাকির হোসেন, আফিফ হোসেন ও শামীম হোসেনকে বিদায় করে চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের মিডল অর্ডারে ধ্বস নামান মুঈন আলী। ৩ উইকেট নিতে ৩ ওভারে মাত্র ২০ রান খরচ করেন এ অলরাউন্ডার। আবু হায়দার, মুস্তাফিজুর রহমান ও তানভীর ইসলাম ১টি করে উইকেট নিয়েছেন। 

whatsapp-image-2022-02-16-at-8.13.40-pm-(1)

১৪৯ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নামা কুমিল্লার লিটন দাসকে প্রথম বলেই আউট করেন শরিফুল ইসলাম। স্বপ্নের মতো শুরুটা দ্রুত মিলিয়ে যায় সুনীল নারাইনের বিধ্বংসি ব্যাটিংয়ে। বিপিএল-এর রেকর্ড মাত্র ১৩ বলে অর্ধশত পূর্ণ করা এ ক্যারিবিয়ান ১৬ বলে ৫৭ রান করেন। ৫ বাউন্ডারি ও ৬ ছক্কায় সাজানো ছিল তার ইনিংস।

এরপর ইমরুল কায়েস (২২), ফাফ ডু প্লেসিস (৩০) ও মুঈন আলীর (৩০) ব্যাটিংয়ে ৪৩ বল হাতে রেখে সহজে জয় নিশ্চিত করে কুমিল্লা। ২৩ বলে ২ বাউন্ডারি ও ১ ছক্কায় অপরাজিত ৩০ রান করেছেন ডু প্লেসিস। মুঈন আলী ছিলেন আরও আক্রমণাত্মক। অপরাজিত ৩০ রান করতে মাত্র ১৩ বল খেলেছেন তিনি; যাতে ছিল ৩ বাউন্ডারি ও ২ ছক্কা।

চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের শরিফুল ইসলাম, মৃত্যুঞ্জয় চৌধুরী ও বেনি হাওয়েল ১টি করে উইকেট নিয়েছেন। ৪ ওভারে কোন উইকেট না পেলেও রানের গতি নিয়ন্ত্রণে রেখেছিলেন সুনীল নারাইন, সঙ্গে ১৬ বলে ৫৭ রানের ইনিংস। দুয়ের যোগফলে ম্যাচ সেরা হয়েছেন এ ক্যারিবিয়ান ক্রিকেটার।

Sponsor

Top